সর্বশেষ

Sunday, January 29, 2023

দেশের ক্রান্তিকালে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে বাংলাদেশ পুলিশ সর্বত্রই প্রশংসিত হয়েছেঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

দেশের ক্রান্তিকালে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে বাংলাদেশ পুলিশ সর্বত্রই প্রশংসিত হয়েছেঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা


ষ্টাফ রিপোর্টারঃ জনগণের আস্থা অর্জনে পুলিশ বাহিনীকে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষা ও জঙ্গিবাদ মোকাবেলায় সাহসী ভূমিকা রেখেছে পুলিশ।

দেশের ক্রান্তিকালে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে বাংলাদেশ পুলিশ সর্বত্রই প্রশংসিত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার দুপুরে রাজশাহীর সারদায় বিসিএস সহকারী পুলিশ সুপারদের সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যেকোনো দুর্যোগ মোকাবিলায়, সন্ত্রাস দমন বা কোনো কাজ করতে গেলে জনগণের সহায়তা একান্তভাবে দরকার। যেকোনো বিপদে পুলিশকে পাশে পেলে মানুষ যেন আশ্বস্ত হয়, সেজন্য পুলিশকে তার পেশাদারিত্ব ও সহমর্মিতা দিয়ে মানুষের আস্থা অর্জন করবে। পুলিশ বাহিনীকে দক্ষ ও বিজ্ঞানভিত্তিক করে গড়ে তোলার কথা জানিয়ে সরকারপ্রধান স্বাধীনতার সুফল জনগণের কাছে পৌঁছে দিতে পুলিশ সদস্যদের সক্রিয় হওয়ার তাগিদ দেন। পুলিশ বাহিনী যেন জনগণের আস্থা অর্জন করতে পারে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের এই উন্নয়নের অগ্রযাত্রা যেন অব্যাহত থাকে। আমি চাই মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় স্বাধীনতার সুফল বাংলার মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে দিয়ে এ দেশকে আমরা আরও উন্নত করব এবং সেভাবেই আপনারা আপনাদের যথাযথ দায়িত্ব পালন করবেন। ইনশাল্লাহ বাংলাদেশকে আর কেউ পিছে টানতে পারবে না।’

 ‘আমরা চাই আমাদের দেশ যেন আর কখনো পিছিয়ে না পড়ে। ২০০৮ সালের নির্বাচনে আমরা নির্বাচনী ইশতেহার দিয়েছিলাম রূপকল্প-২০২১ সেটা বাস্তবায়ন করেছি। জাতির পিতার জন্ম শতবার্ষিকী, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী আমরা উদযাপন করেছি। ঠিক সেই সময় আমরা উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছি। এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত রেখে উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার জন্য ডেলটা প্ল্যান-২১০০ আমরা প্রণোয়ন করে দিয়ে গেলাম।’

এর আগে একাডেমির প্যারেড গ্রাউন্ডে ৩৮তম বিসিএস পুলিশ ক্যাডারের শিক্ষানবিশ সহকারী পুলিশ সুপারদের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ পরিদর্শন করেন সরকারপ্রধানশেখ হাসিনা। পরে প্রশিক্ষণে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনকারী কর্মকর্তাদের মাঝে ট্রফি বিতরণ করেন এবং নবীন পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্দেশে বক্তব্য দেন।অনুষ্ঠানে উপস্থিত রয়েছেন মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, সংসদ সদস্য, পুলিশের মহাপরিদর্শকসহ ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা।

Wednesday, January 25, 2023

৭ বছরে প্রায় ৭ কোটি টাকা দূর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ কেশরহাট পৌর মেয়র শহিদের বিরুদ্ধে

৭ বছরে প্রায় ৭ কোটি টাকা দূর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ কেশরহাট পৌর মেয়র শহিদের বিরুদ্ধে

 


কেশরহাট পৌরসভার বর্তমান মেয়র শহিদুজ্জামান তিনি বিগত ৭ বছরে প্রায় ৭ কোটি টাকা দূর্নীতি ও অনিয়ম করে আত্মসাত করেছেন। এডিপির অর্থায়নে কেশরহাট পৌরসভায় প্রতি অর্থ বছরে ৭৮-৮৬ লক্ষ টাকা বরাদ্দ হয়। সে অর্থ দ্বারা পৌরসভার আর্থ সামাজিক উন্নয়নে টেন্ডারের মাধ্যমে ব্যয় হওয়ার কথা থাকলেও মেয়র বিভিন্ন নাম মাত্র কোটেশন দেখিয়ে ইচ্ছেমত বিল ভাউচার বানিয়ে তা পুরো আত্মসাত করেন; যা সম্পূর্ণ আইনের পরিপন্থি। এ নিয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রালয়, উপ-পরিচালক স্থানীয় সরকার বিভাগ, বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসককে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।

রাজশাহী-নওগাঁ মহাসড়ক ঘেঁসে এ অঞ্চলের বিখ্যাত আর্থিক লেনদেন সমৃদ্ধ বাজার কেশরহাট। এখান থেকে প্রতি বছর  ১ কোটি টাকার উপরে হাটের ইজারা মূল্য আাদায়সহ, ভূমি কর, রেজিষ্ট্রি অফিস ও হোল্ডিং ট্যাক্স থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ আয় করলেও সে অর্থের সঠিক ব্যবহার হয়নি। বরং ওই অর্থ দ্বারা কোনো নিয়মের তোয়াক্কা না করে নামে বে-নামে বিভিন্ন বিল ভাউচার ব্যবহার করে মেয়র নিজের দাম্ভিকতা দেখিয়ে ভোগ বিলাস আর বিপুল সম্পদ গড়েছেন। যা দৃশ্যমান ।

কেশরহাট পৌর মেয়রের শহিদুজ্জামানের বিরুদ্ধে সাত কোটি টাকা লোপাটের অভিযোগ তুলেছেন ৫ কাউন্সিলর। আজ বুধবার দুপুরে রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়ন কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ অভিযোগ করেন তাঁরা। এসময় মেয়রের বিরুদ্ধে টাকা লোপাটের মাধ্যমে অট্টলিকা গড়ে তোলাসহ আরও নানা অনিয়মের অভিযোগ তুলে ধরেন কাউন্সিলররা।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর বাবুল আক্তার, ১ নম্বর ওয়ার্ড  কাউন্সিলর একরামুল, ৮নং নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আসলাম হোসেন, ৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ছাবের আলী ও ৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল হামিদ।

কেশরহাট উন্নয়নে ও রাজস্ব আয় বাড়ানোর জন্য সরকার এনসিডিপি মার্কেট নির্মাণ করেছেন। সেখানে বিভিন্ন ব্যবসায়ীরা ভাড়ার মাধ্যমে ব্যবসা-বাণিজ্য করেন। যার আয় উন্নয়ন খাতে জমা হওয়ার কথা। কিন্তু ওই মার্কেট দীর্ঘদিন যাবৎ মেয়র তার মনোনীত ব্যক্তিকে সাইকেল, মোটরসাইকেল গ্যারেজ ও গোডাউন হিসেবে ভাড়া দিয়ে ব্যাক্তিগত ভাবে অর্থ আয় করেছেন। যার কোনো অর্থ উন্নয়ন খাতে জমা হয় না।

অত্র পৌরসভায় বিএমডিএফ এর প্রায় ৬ কোটি টাকা অর্থায়নে পৌর সুপার মার্কেট নির্মাণ হয়। গত ৭ বৎসর অতিবাহিত হলেও দ্বিতল ভবনের প্রায় শতাধিক ঘর কোন রেজুলেশন ও নিয়ম, নীতি ছাড়া বরাদ্দের মাধ্যমে ৩ কোটি টাকা আত্মসাত করেন। পৌরসভার কোষাগারে কোন টাকা জমা না করে সম্পূর্ণ আত্মসাত করেন।

মেয়র বিগত ২০১৬ সালের নির্বাচনে তার নির্বাচনী হলোফনামায় যে পরিমাণ সম্পদ দেখান, সেখানে গক ২০২১ সালের নির্বাচনের শতগুন সম্পদ বেড়ে টাকার পাহাড় গড়েছেন। তার নিজস্ব ব্যবসা বাণিজ্য, জমি-জমা বা পরিবারের কেউ কোন চাকুরী না করেও নিজ গ্রামে ডুপ্লেক্স দুইটি ভবন নির্মাণ করেছেন। তিনি এবং তার আপন ছোট ভাই রোকনুজ্জামান টিটু, যিনি কেশরহাট পৌরসভার লাইসেন্স পরিদর্শক পদে নামমাত্র কর্ম করে দুই সহদর মিলে দুর্নীতির মাধ্যমে প্রায় ৩ কোটি টাকার প্রাসাদ গড়েছেন। যার বিভিন্ন আসবার পত্রে ও কারুকাজে বিপুল অর্থের প্রাচুর্য লক্ষনীয় ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন বাংলাদেশকে উন্নতির শিখরে নিয়ে যাচ্ছেন, তখন কেশরহাট পৌর মেয়র শহিদুজ্জামান শহিদ বিভিন্ন দুর্নীতি ও অপকর্মের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও অর্জনকে চরমভাবে বাধাগ্রস্থ করছেন। আমরা আশা করি এর সঠিক তদন্ত হলে আরো অধিক অপকর্মের চিত্র প্রমাণসহ বেরিয়ে আসবে।

Sunday, January 8, 2023

উত্তর পশ্চিমের হিমেল হাওয়ায় বিপর্যস্ত রাজশাহীর জনজীবন

উত্তর পশ্চিমের হিমেল হাওয়ায় বিপর্যস্ত রাজশাহীর জনজীবন


উত্তর পশ্চিমের তীব্র  হিমেল হাওয়ায় রাজশাহী অঞ্চলের মানুষ শীতে বিপর্যস্ত। গত এক সপ্তাহ থেকেই রাজশাহীর উপর দিয়ে  চলছে মৃদু শৈত্য প্রবাহ। রাজশাহী  আবহাওয়া অফিস আজ রবিবার সকালে এই মৌসুমের সর্বনিম্ন ৮ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করেছে। শনিবার আগের দিন ৯ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রের্কড করা হয়। শুক্রবার  সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১০ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।   টানা চার দিন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রির নিচে ছিল। তাপমাত্রা ১০.৬ থেকে ৯.২ ডিগ্রী সেলসিয়াসে উঠানামা করছে। দিন ও রাতের তাপমাত্রার ব্যবধান কমে যাওয়ায় শীতের তীব্রতা বাড়ছে।  টানা গত কয়েকদিন থেকে বেলা বারোটা পর্যন্ত ঘন কুয়াশার চাদরে ঢাকা থাকছে চারিদিক। দুপুরের দিকে দু’তিন ঘন্টার জন্য সূর্যের মুখ দেখা গেলেও তা ছিল তাপ হিন। সন্ধ্যার পর পরই আবারও নামছে কুয়াশা। রাত আটটার মধ্যেই ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে চারিদিক। রাত যত গভীর হয় কুয়াশা তত গভীর হয়।
রাজশাহী আবহাওয়া অফিসের উচ্চ পর্যবেক্ষক আব্দুস সালাম জানান, উওর পশ্চিমের হিমেল বাতাসের কারণে এই তাপমাত্রা গায়ে লাগছে না । শীতের এ তীব্রতা আরো কয়েকদিন থাকবে। তাপমাত্রা আরো নিচে নামবে পারে।
আজ রাজশাহীতে মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৮.৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস।
এই হিমেল হাওয়ার দাপটেই কাঁপছে রাজশাহী অঞ্চলের ছিন্নমূল মানুষ। শ্রমজীবী মানুষ শীতের মধ্যেই কাজের সন্ধানে বের হলেও চাকরীজিবীরাও কিছুটা বিলম্বে অফিসে যাচ্ছে। বিভিন্ন বাজারের ব্যবসায়ীরা দোকানপাট খুলছে দেরীতে।
রাজশাহী শহরের রিকশাচালক কালাম বলেন, শীতের কারনে লোকজন শহরে কম আসছে। প্রয়োজনীয় কাজ ছাড়া লোকজন সহজে বাড়ি থেকে বের হচ্ছে না এ জন্য রিকশায় নেওয়ার যাত্রীও কমে গেছে। আয় কমে যাওয়ায় কোনোমতে দিন কাটাতে হচ্ছে। দুই দিন থেকে ঠান্ডা বাতাসে খুব শীত লাগছে।

আবহাওয়া কর্মকর্তারা আরো জানান,শহর হতে গ্রামাঞ্চলে ফাঁকা মাঠ বেশি এবং গাছপালা বেশি থাকায় গ্রাম অঞ্চলে বেশি শীত অনুভূত হচ্ছে।এই শীতে বেশী কষ্ট পাচ্ছে বৃদ্ধ ও শিশুরা। আর এই শীতে ঠান্ডাজনিত রোগ দেখা দেওয়ায় হাসপাতাল গুলোতে রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। ফসলের বীজ তলা ঠিকমত পরিচর্যা করতে না পারা ও কুয়াশায় চারা নষ্ট হওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে।
রাজশাহী পবা উপজেলার  বিভিন্ন এলাকায়  দেখা যায়, সড়কে খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণ করার চেষ্টা করছেন স্থানীয় লোকজন। সেখানে হযরত আলী নামের একজন বলেন, ‘কনকনে শীতে লোকজন জবুথবু হয়ে পড়েছে। এ জন্য ঠান্ডা থেকে রক্ষা পেতে আমরা দু-তিনজনে সামান্য খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছি।’ এই তীব্র শীতে গরু-ছাগল রক্ষা করতে চট গায়ে দিয়ে রাখতে হচ্ছে।
রাজশাহী আবহাওয়া  পর্যবেক্ষণাগারের পর্যবেক্ষক আব্দুস  সালাম জানান, দুই দিন ধরে রাজশাহীর  ওপর দিয়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বইছে। এ ছাড়া বাতাসের আর্দ্রতার পরিমাণ বেশি। দিনের বেলায় সূর্যের উত্তাপ মিলছে না। এতে শীতের তীব্রতা বেশি অনুভূত হচ্ছে। আরও কয়েক দিন এ রকম পরিস্থিতি বিরাজ করতে পারে।




আর্তমানবতার সেবায় কাজ করেছি,করছি এবং আগামীতেও করে যাবঃ রাসিক কাউন্সিলর সুমন

আর্তমানবতার সেবায় কাজ করেছি,করছি এবং আগামীতেও করে যাবঃ রাসিক কাউন্সিলর সুমন

 


আর্তমানবতার সেবায় ১৯ নং ওয়ার্ডের গরীব ও অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন। রবিবার বিকেল ৪টায় ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কার্যালয়ে ১৯ নং ওয়ার্ড এলাকায় অত্র ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন হুইল চেয়ার ১টি, ওয়াকার চেয়ার ৪টি ওয়াকার স্টিক ৩০ টি ও ব্যক্তিগত উদ্যোগে শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরই করেন। এছাড়া গত পহেলা জানুয়ারি থেকে প্রতিদিন ভোরে মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে কম্বল ও চাদর বিতরণ করে আসছেন কাউন্সিলর সুমন।


এ ব্যাপারে কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন বলেন,  মানবিক বিবেচনায় নিজ উদ্যোগে ও মাননীয় মেয়র জননেতা এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন এর সহযোগিতায় প্রতিনিয়ত শীতার্তদের মাঝে মোটা চাদর, কম্বল বিতরণ করা হচ্ছে। যতদিন শীত থাকবে, ততদিন অব্যাহতভাবে শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল ও চাদর বিতরণ করা হবে। আমি সব সময় ওয়ার্ডবাসীর পাশে ছিলাম, আছি ও আগামীতেও থাকবো।

কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন আরো বলেন, ,শুধু লোক দেখানো নয়, সকল সচেতন বিত্তবানদের শীতার্ত মানুষের পাশে এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছি।

হুইলচেয়ার, ওয়াকিং চেয়ার, ওয়াকার স্টিক ও কম্বল বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন  ইউনাইটেড হিউম্যান কাইন্ডনেস অরগানাইজেশান এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মো সিরাজুল হক, নাইমুল ইসলাম সাকিব, ওয়ার্ড সচিব মোঃ নুরুল ইসলাম ফয়সাল প্রমুখ।

Monday, January 2, 2023

রাসিক মেয়রের সাথে রাজশাহী অনলাইন সাংবাদিক ফোরামের নেতৃবৃন্দের সৌজন্য সাক্ষাৎ

রাসিক মেয়রের সাথে রাজশাহী অনলাইন সাংবাদিক ফোরামের নেতৃবৃন্দের সৌজন্য সাক্ষাৎ


নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটনের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ ও ফুলেল শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন রাজশাহী অনলাইন সাংবাদিক ফোরামের নেতৃবৃন্দরা।

আজ সোমবার ২ জানুয়ারি বিকেল ৩টার সময় নগর ভবনের মেয়র দপ্তরে এই সৌজন্য সাক্ষাৎ ও ফুলেল শুভেচ্ছা বিনিময় করেন রাজশাহী অনলাইন সাংবাদিক ফোরামের নেতৃবৃন্দরা।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী অনলাইন সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি মীর তোফায়েল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক জাহিদ হাসান সাব্বির, সহ-সভাপতি জান্নাতুল মাওয়া সিফা, সহ-সভাপতি নূরজামাল ইসলাম, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নাঈম হোসেন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জয় খ্রিষ্টফার বিশ্বাস, সাংগঠনিক সম্পাদক মানিক হোসেন, দপ্তর সম্পাদক আশিকুর রহমান, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মো: রাজন ইসলাম, ক্রীড়া ও সংস্কৃতি সম্পাদক মতিউর রহমান মতি, তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক রুবেল পারভেজ, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক আফরোজ খান হেলেন, কার্য নিবাহী সদস্য হুমায়ূন কবীর, কার্য নির্বাহী সদস্য সাঈদ হাসান পিন্টু, কার্য নিবাহী সদস্য কাজল শুভ্র দাস প্রমুখ।

এছাড়াও সদস্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জিহান খান, সুজন ইসলাম, টিটু, সোনিয়া খাতুন, রুমানা রহমান, গোলাম ওয়াহিদুর রহমান, ওমর আলী, মতিউর রহমান মতি, আরিয়ান সুরুজ, কামরুল ইসলাম, রাজন ইসলাম, পাভেল ইসলাম, এসএম সায়েম।

এর আগে বেলা ১২ টায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরালে রাজশাহী অনলাইন সাংবাদিক ফোরামের শুভ যাত্রা উপলক্ষে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও একমিনিট নীরবতা পালন করা হয়।


পরে জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এ এইচ এম কামারুজ্জামান হেনার সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।